1. [email protected] : dalim :
  2. [email protected] : dalim1 :
বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৮:০১ পূর্বাহ্ন

ফেনীর দাদনার খাল দখল ও দুষণের অভিযোগ:স্বপ্রণোদিত হয়ে তদন্তের নির্দেশ দিলেন স্পেশাল ম্যাজিস্ট্রেট

  • প্রকাশিত হয়েছে : বৃহস্পতিবার, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ৪২ বার পঠিত হয়েছে

ল লাইফ রিপোর্টঃ ফেনী জেলার দাগনভূঁঞা পৌর এলাকার দাদনার খাল দখল ও দূষণ প্রতিরোধে সরেজমিন তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে জেলার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ও স্পেশাল ম্যাজিস্ট্রেট মো. জাকির হোসাইনের আদালত।

বৃহস্পতিবার (১৬ সেপ্টেম্বর) স্থানিয় সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত তথ্যের ভিত্তিতে এই আদেশ দেয়া হয়েছে বলে আদালত সূত্রে জানা গেছে। আগামী ০৪ অক্টোবরের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য জেলার পরিবেশ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালককে নির্দেশ প্রদান করা হয়েছে।

আদেশে তদন্তকারী হিসেবে জেলার পরিবেশ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক পর্যায়ের কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দেয়ার জন্য বলা হয়েছে। তদন্ত কাজে প্রকাশিত সংবাদপত্রের সম্পাদক ও প্রতিবেদককে  তদন্তকারী কর্মকর্তাকে সহযোগিতা করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এছাড়া, তদন্ত কাজে দাগনভূঁঞা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এবং অফিসার ইনচার্জ’কে আইনগত ও প্রশাসনিক সহায়তা প্রদানের নির্দেশ প্রদান করেছে আদালত।

প্রকাশিত সংবাদে উল্লেখ করা হয়, প্রায় দুইশত বছরের পুরোনো ও অতি প্রয়োজনীয় দাগনভূঁঞা উপজেলার দাদনার খাল দখলে ও দূষণে বিলীন হওয়ার পথে। খালটি ৮ কিলোমিটার দীর্ঘ হলেও ৩ কিলোমিটার দখল এবং দূষণের মধ্যে রয়েছে।

খবরে দাবি করা হয়, দাগনভূঁঞা পৌর এলাকার প্রায় দুইশত দখলদার ব্যক্তি বা গোষ্ঠি খালটিকে দখল করে দোকান ও বিভিন্ন ধরনের ব্যক্তি মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলেন। এছাড়া দাগনভূঁঞা বাজারের মাংস ব্যবসায়ীরা প্রতিদিন গরু জবেহ করে তার বর্জ্য ও ময়লা দাদনার খালে ফেলে পরিবেশের ব্যাপক ক্ষতি করছে। এছাড়া দাদনার খালে বিভিন্ন ধরনের স্থাপন নির্মাণ ও জমি দখল করায় খাল সংকুচিত হয়ে গেছে। এতে, এলাকার স্বাভাবিক পানি নিস্কাশন ও প্রবাহ ব্যাপকভাবে ব্যহৃত হচ্ছে।

ফলে বিষয়টি জনজীবনের স্বাভাবিক পরিবেশ নিশ্চিত ও পরিবেশ সংক্রান্ত অপরাধ নির্মুল করার লক্ষ্যে প্রকাশিত সংবাদকে আমলে নিয়ে বিস্তারিত তদন্ত হওয়া প্রয়োজন মর্মে আদালতের নিকট প্রতীয়মান হওয়ায় আদালত এই আদেশ দিয়েছেন।

আদালতের আদশে বলা হয়েছে- প্রকাশিত সংবাদ সত্যতা প্রমানিত হলে তা’ পরিবেশ সংরক্ষণ আইন, ১৯৯৫ এর ধারা ৬ঙ ও ১৫ ধারার টেবিল ৮ এবং দ্যা গভমেন্ট অ্যান্ড লোকাল অথরিটি ল্যান্ড এন্ড বিল্ডিং (রিকভারি অব প্রসেশন) অডিনেন্স, ১৯৭০ অনুযায়ী শাস্তিযোগ্য ও বিচারযোগ্য অপরাধ বলে গণ্য হবে এবং সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যস্থা গ্রহণ করা হবে।

অনুগ্রহ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

এ সম্পর্কীত আরো সংবাদ