1. [email protected] : dalim :
  2. [email protected] : dalim1 :
সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৯:৩৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
পাঠ্যবইয়ে ভুল : এনসিটিবির চেয়ারম্যানকে হাইকোর্টে তলব মুনিয়াকে ধর্ষণের পর হত্যা: রিপনের হাইকোর্টে আগাম জামিন সরকারি কর্মচারীদের গ্রেফতারে পূর্বানুমতি কেন অবৈধ নয় সাবেক প্রতিমন্ত্রী আবদুল মান্নান দম্পতির বিচার শুরু বৃদ্ধা আছিয়াকে হাজির করতে এবার পুলিশকে নির্দেশ দিলেন হাইকোর্ট সিজিএম মোঃ শওকত আলীর সুস্থতা কামনায় ভার্চুয়াল দোয়া মাহফিল ই-কমার্স গ্রাহকদের স্বার্থরক্ষায় ৩৩ ভুক্তভোগীর রিট আসামির শরীরে ক্ষতচিহ্ন; স্বপ্রণোদিত হয়ে তদন্তের নির্দেশ দিলেন আদালত মিথ্যা তথ্য দিয়ে মামলায় প্রতিদ্বন্দ্বিতা করায় বিবাদীকে বিশ হাজার টাকা জরিমানা আন্তর্জাতিক শান্তি দিবস পালন করলো সিএমসি

মিনুকে জেল খাটানো কুলসুমী-মর্জিনা দুইদিনের রিমান্ডে

  • প্রকাশিত হয়েছে : বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই, ২০২১
  • ৪৫ বার পঠিত হয়েছে

ল লাইফ রিপোর্টঃ চট্টগ্রামে নিরপরাধ মিনুকে নিজের বদলে অন্যায়ভাবে তিন বছরেরও বেশি সময় জেল খাটানোর ঘটনায় কুলসুমী আক্তার কুলসুমী ও তার সহযোগী মর্জিনা আক্তারকে দুইদিনের রিমান্ডে দিয়েছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার (২৯ জুলাই) বিকেলে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মেহনাজ রহমানের ভার্চুয়াল আদালত এ রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও কোতোয়ালি থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) জোবায়ের মৃধা।

তিনি বলেন, ‘বৃহস্পতিবার ভোরে একটি হত্যা মামলার যাবজ্জীবন সাজায় নিজের বদলে কৌশলে অন্য নারীকে জেল খাটানো কুলসুমী আক্তার কুলসুমী ও তার সহযোগী মর্জিনা আক্তারকে গ্রেফতার করা হয়। দুপুরে তাদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট ধারায় মামলা করা হয়। ওই মামলায় সাতদিনের রিমান্ড আবেদন করে তাদের আদালতে প্রেরণ করা হয়। শুনানি শেষে আদালত প্রত্যেক আসামিকে দুদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।’

আদালত সূত্রে জানা গেছে, কোহিনুর আক্তার নামে এক গৃহকর্মী হত্যা মামলার কুলসুমী আক্তার কুলসুমীকে যাবজ্জীবন সাজা প্রদান করেন আদালত। কিন্তু কুলসুমী কৌশলে নিজের বদলে মিনু নামে এক নারীকে আদালতে আত্মসমর্পণ করানোর মাধ্যমে কারাগারে প্রেরণ করেন। তিন বছরের বেশি সময় নিরপরাধ মিনু জেল খাটার পর বিষয়টি কারা কর্তৃপক্ষের নজরে আসে। এতে বিভিন্ন আইনি প্রক্রিয়া শেষে ১৬ জুন মিনু কারাগার থেকে মুক্ত হন। তবে মুক্ত হওয়ার পর ২৮ জুন রাতে বায়েজিদ সংযোগ সড়কে তিনি দুর্ঘটনায় মারা যান।

জানা গেছে, নগরের কোতোয়ালি থানার রহমতগঞ্জে একটি বাসায় ২০০৬ সালের জুলাই মাসে মোবাইলে কথা বলার ঘটনাকে কেন্দ্র করে গৃহকর্মী কোহিনুর আক্তারকে গলাটিপে হত্যা করা হয়। এরপর একটি গাছের সঙ্গে ঝুলিয়ে রাখা হয়। কোহিনুর আত্মহত্যা করেছেন বলে দাবি করেন পোশাককর্মী কুলসুম আক্তার কুলসুমী। এরপর থানায় অপমৃত্যু মামলা হয়।

মামলায় পুলিশ দুই বছর তদন্ত শেষে কোহিনুরকে হত্যা করা হয়েছে মর্মে প্রতিবেদন দিলে মামলাটি হত্যা মামলায় রূপান্তর করা হয়। এর মধ্যে এক বছর তিন মাস জেল খেটে জামিনে মুক্তি পান কুলসুম।

মামলার বিচার শেষে ২০১৭ সালের নভেম্বরে তৎকালীন অতিরিক্ত চতুর্থ মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. নুরুল ইসলাম ওই হত্যা মামলায় আসামি কুলসুম আক্তার কুলসুমীকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডসহ ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও এক বছরের কারাদণ্ডাদেশ দেন। ওই সাজার পরোয়ানামূলে ২০১৮ সালের ১২ জুন কুলসুম আক্তার কুলসুমীর বদলি হয়ে মিনু কারাগারে যান।

অনুগ্রহ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

এ সম্পর্কীত আরো সংবাদ