1. [email protected] : dalim :
  2. [email protected] : dalim1 :
মঙ্গলবার, ২২ জুন ২০২১, ১০:২৭ পূর্বাহ্ন

মাওলানা ওয়াহিদউদ্দীন খানের মৃত্যুতে বিমস চেয়ারম্যানের গভীর শোক ও সমবেদনা

  • প্রকাশিত হয়েছে : শনিবার, ২৪ এপ্রিল, ২০২১
  • ১৬৩ বার পঠিত হয়েছে

ছবিঃ মাওলানা ওয়াহিদউদ্দিন খানের সাথে বিমস চেয়ারম্যান এস এন গোস্বামী।

ল লাইফ রিপোর্ট: ভারতের প্রখ্যাত ইসলামিক স্কলার   ও বিমসের আন্তর্জাতিক উপদেষ্টা মাওলানা ওয়াহিদউদ্দীন খানের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল মেডিয়েশন সোসাইটির(বিমস) চেয়ারম্যান ও আফ্রিকা-এশিয়া মেডিয়েশন এসোসিয়েশনের(আমা) কো-চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট এস এন গোস্বামী।

শনিবার এক শোক বার্তায় বিমস চেয়ারম্যান এস এন গোস্বামী বলেন,বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠায় মাওলানা ওয়াহিদউদ্দীন খানের অবদান চিরস্বরণীয় হয়ে থাকবে। তার নীতি ও জীবনী যুগ যুগ ধরে দেশে দেশে শান্তি প্রতিষ্ঠায় নিয়োজিত ব্যক্তি ও সংগঠনকে অনুপ্রেরণা যোগাবে।

এস এন গোস্বামী  বিশ্ব শান্তি দূত মাওলানা ওয়াহিদউদ্দীন খানের স্মৃতিচারণ করে বলেন,তিনি ছিলেন বিমসের আত্মীক গুরু। তার মৃত্যুতে বিমস একজন আন্তর্জাতিক অভিভাবক হারালো। যা সহজে পূরণ হবার নয়।

বিমস চেয়ারম্যান আফসোস করে বলেন,২০২১ সালের আফ্রিকা-এশিয়া মেডিয়েশন এসোসিয়েশনের(আমা) অ্যাওয়ার্ডের জন্য মনোনীত হয়েছিলেন মাওলানা ওয়াহিদউদ্দীন খান। কিন্তু আমরা তার হাতে অ্যাওয়ার্ড তুলে দেওয়ার আগেই তিনি মারা গেলেন।

এসময় তিনি মাওলানা ওয়াহিদউদ্দীন খানের শোক সন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানান।

ছবিঃ বিমস চেয়ারম্যান এস এন গোস্বামীকে আর্শিবাদ করছেন মাওলানা ওয়াহিদউদ্দিন খান।

উল্লেখ্য, গত বুধবার ভারতের প্রখ্যাত ইসলামিক স্কলার ও শান্তিদূত মাওলানা ওয়াহিদউদ্দীন খান মারা গেছেন। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে রাজধানীর দিল্লির একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায়   তার মৃত্যু হয়। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৯৬ বছর।

মাওলানা ওয়াহিদ উদ্দীনের বড় ছেলে জাফরুল ইসলাম এক টুইটে বলেছেন, ‘মহান ইসলামিক স্কলার মাওলানা ওয়াহিদউদ্দীন খান গতরাতে (বুধবার) শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন। চিকিৎসক তার নিভু নিভু হৃদস্পন্দন জাগাতে ব্যর্থ হয়েছেন। তার আত্মার মাগফেরাত এবং আল্লাহ যেন জান্নাত নসিব করেন, সেজন্য সবাই দোয়া করবেন, আমিন।’

আলজাজিরা বলছে, ওয়াহিদউদ্দীন খান ২০০’র বেশি বই লিখেছেন এবং বহু পুরস্কার পেয়েছেন। এ বছর তাকে ভারতের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বেসামরিক পুরস্কার ‘পদ্মভূষণ’ দেওয়া হয়।

মাওলানা ওয়াহিদউদ্দীন ১৯২৫ সালে আজমগরে জন্মগ্রহণ করেন। বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠায় অবদানের জন্য তিনি বিশ্বে ব্যাপকভাবে জনপ্রিয়। ২০০৯ সালে ওয়াশিংটনের জর্জটাউন ইউনিভার্সিটি বিশ্বে ইসলামের আত্মিক শান্তির দূত হিসেবে যে ৫০০ প্রভাবশালী মুসলিমের তালিকা করে, তাতে প্রথম সারির দিকে স্থান করে নেন ওয়াহিদউদ্দীন।

 

অনুগ্রহ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

এ সম্পর্কীত আরো সংবাদ