1. [email protected] : dalim :
  2. [email protected] : dalim1 :
বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১, ০৩:৫৪ অপরাহ্ন

আইনজীবীদের মুভমেন্ট পাসের আওতামুক্ত ঘোষণা করতে আইজিপিকে চিঠি

  • প্রকাশিত হয়েছে : শনিবার, ১৭ এপ্রিল, ২০২১
  • ৫৫৩ বার পঠিত হয়েছে

ল লাইফ রিপোর্ট: আইনজীবীদের মুভমেন্ট পাসের আওতামুক্ত ঘোষণা করে নির্দেশনা জারির অনুরোধ জানিয়ে চিঠি দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক সম্পাদক ও বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন। শনিবার (১৭ এপ্রিল) পুলিশ মহাপরিদর্শক (আইজিপি) বরাবর তিনি এ চিঠি প্রেরণ করেন।

চিঠিতে ব্যারিস্টার খোকন লিখেছেন, আইনজীবীদের পেশাগত কাজে দেশের মানুষের আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা ও দেশের জনগণের সাংবিধানিক অধিকার নিশ্চিতকল্পে আদালতে হাজির হয়ে আইনি কার্যক্রম পরিচালিত করতে হয় বিধায় সারাদেশে বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের তালিকাভুক্ত আইনজীবীদের মুভমেন্ট পাসের আওতামুক্ত ঘোষণা পূর্বক প্রয়োজনীয় নির্দেশনা জারির অবেদন ও দাবি জানাচ্ছি।

চিঠিতে বলা হয়, বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের আইনজীবীরা দেশের মানুষের সাংবিধানিক অধিকার রক্ষায় আইনগত সহায়তা প্রদান করেন। তাই আইনজীবীদের আইনের ভাষায় অফিসার অব কোর্ট বলা হয়ে থাকে। করোনার এই মাহামারিতে পুলিশ কর্তৃক আটক আইনজীবীদের বিভিন্ন ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে পাঠানো হলে আসামিদের আইনগত সহায়তা দিতে আইনজীবী দরকার।

চিঠিতে আরও লেখা হয়েছে, করোনার ভয়াল সংক্রমণেও আইনজীবীরা দেশের নাগরিকদের সাংবিধানিক অধিকার ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় মৃত্যুর ঝুঁকি মাথায় নিয়ে আদালতে সশরীরে এসে আইনগত লড়াই করেন। করোনা পরিস্থিতিতে ফ্রন্ট লাইনের হিসেবে কাজ করে যাচ্ছে। দেশে লকডাউন চলমান থাকলেও দেশের আপিল বিভাগ, হাইকোর্ট বিভাগসহ সব মহানগর দায়রা জজ আদালতসহ সিএমএম, সিজিএম কোর্ট সীমিত পরিসরে চলমান রয়েছে। ফলে প্রতিনিয়ত মামলা ফাইলিং, জামিন আবেদন দাখিল, ওকালতনামা দাখিল, জামিনামা দাখিলে আইনজীবীদের পেশাগত কাজে আদালতে যেতে হয়। কিন্তু দুঃখের বিষয়- আদালতে যাওয়ার সময় রাস্তায় পুলিশ কর্তৃক আইনজীবীদের জেরার সম্মুখীন হতে হয়। অপদস্ত হতে হচ্ছে। মুভমেন্ট পাসের অজুহাতে আইনজীবীদের আত্মসম্মান বিসর্জন দিতে হচ্ছে। যা দেশের আইনজীবীদের জন্য অনভিপ্রেত ও অপমানজনক।

করোনা সংক্রমণ রোধে সরকারি বিধিনিষেধ চলাকালীন সময়ে মুভমেন্ট পাসের আওতামুক্ত আছেন- ডাক্তার, নার্স, মেডিকেল স্টাফ, কোভিড টিকা/চিকিৎসার সঙ্গে জড়িত ব্যক্তি/স্টাফ, ব্যাংকার, ব্যাংকের অন্যান্য স্টাফ, সাংবাদিক, গণমাধ্যমের ক্যামেরাম্যান, টেলিফোন/ইন্টারনেট সেবাকর্মী, বেসরকারি নিরাপত্তাকর্মী, জরুরি সেবার সঙ্গে জড়িত কর্মকর্তা/কর্মচারী, অফিসগামী সরকারি কর্মকর্তা, শিল্পকারখানা/গার্মেন্টস উৎপাদনে জড়িত কর্মী/কর্মকর্তা, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য, ফায়ার সার্ভিস, ডাকসেবা; বিদ্যুৎ, পানি, গ্যাস ও জ্বালানির সঙ্গে জড়িত ব্যক্তি/কর্মকর্তা; বন্দর–সংশ্লিষ্ট ব্যক্তি/কর্মকর্তারা।

অনুগ্রহ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

এ সম্পর্কীত আরো সংবাদ