1. [email protected] : dalim :
  2. [email protected] : dalim1 :
বৃহস্পতিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ০২:০৮ পূর্বাহ্ন

গৃহকর্মী নির্যাতনের মামলায় ব্যাংকার কারাগারে

  • প্রকাশিত হয়েছে : সোমবার, ৫ জুলাই, ২০২১
  • ১০৬ বার পঠিত হয়েছে

ল লাইফ রিপোর্টঃ রাজধানীর ভাটারার কুড়িল বিশ্বরোড এলাকায় ১৪ বছর বয়সী এক গৃহকর্মীকে নির্যাতনের অভিযোগে করা মামলায় বেসরকারি একটি ব্যাংকের কর্মকর্তা আসাদুর রহমান আরিফকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আদালত।

আজ সোমবার (৫ জুলাই) দুই দিনের রিমান্ড শেষে তাকে ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করে পুলিশ। এরপর মামলার তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন তদন্ত কর্মকর্তা। আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ঢাকা মহানগর হাকিম দেবব্রত বিশ্বাস তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

এর আগে শুক্রবার (২ জুলাই) তাকে ঢাকা মহানগর হাকিম আদালতে হাজির করে পুলিশ। এরপর মামলার সুষ্ঠু তদন্তের জন্য তাকে সাত দিনের রিমান্ডে নিতে আবেদন করা হয়। শুনানি শেষে ঢাকা মহানগর হাকিম শহিদুল ইসলাম তার দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

গৃহকর্মী নির্যাতনের অভিযোগে আসাদুর রহমান আরিফ নামের ওই ব্যাংকার ও তার স্ত্রী মাহফুজা রহমানের বিরুদ্ধে বৃহস্পতিবার (১ জুলাই) ভাটারা থানায় মামলা হয়। মামলার পর আসাদুরকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

জানা গেছে, বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে নির্যাতনের শিকার কিশোরীকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিয়ে যান তার বোন।

সে সময় আহত ওই কিশোরী অভিযোগ করে, ‘আমি আট মাস ধরে ওই বাসায় কাজ করি। বিভিন্ন সময় নানা অজুহাতে আমাকে গরম পানি ও খুন্তির ছ্যাঁকা এবং মাথা দেয়ালের সঙ্গে ঠুকে নির্যাতন করা হতো। আমি অনেকবার বাসা থেকে পালানোর চেষ্টা করেছি। কিন্তু স্যার ও ম্যাডাম আমাকে পালাতে দেয়নি। গতকাল সকাল সাড়ে ৮টার দিকে তারা আমাকে কুড়িল বিশ্বরোড ওভারব্রিজের কাছে আমার বোন ফাতেমার বাসায় দিয়ে আসে।’

এ বিষয়ে ওই কিশোরীর বোন ফাতেমা বেগম সেদিন বলেন, ‘আমার বোন ওই বাসায় আট মাস ধরে কাজ করে। পাঁচ হাজার টাকা করে প্রতি মাসে দেয়ার কথা থাকলেও মাত্র তিন মাসের টাকা দিয়েছে।’

তার অভিযোগ, ‘এখনো তাদের কাছে আমার বোন অনেক টাকা পায়। টাকার কথা বললেই বিভিন্ন সময় আমার বোনকে মারধর করা হতো। তার শরীরে অনেক আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। আজ তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে আসি। প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হলেও সঙ্গে পুলিশ না থাকায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ভর্তি করেনি।’

এ বিষয়ে অভিযুক্ত গৃহকর্তা আসাদুর রহমান বলেন, ‘আমি একটি বেসরকারি ব্যাংকে কর্মরত, আমার স্ত্রী গৃহিণী। সম্প্রতি আমার একটি কন্যা সন্তান হয়েছে এবং আগে যমজ বাচ্চা রয়েছে। গৃহকর্মীকে ভালোভাবে কাজ করতে বলা হলে সে পাগলামি করে। আমি একাধিকবার তার বাবাকে বলেছিলাম মেয়েকে নিয়ে যেতে।’

তিনি আরও বলেন, ‘গতকাল আমি নিজে গিয়ে তার বোনের কাছে ১৪ হাজার টাকা দিয়েছি। এর আগে আমি ১৫ হাজার টাকা দিয়েছি। আরও ৬ হাজার টাকা দিয়ে দেব বলেছি।’

মেয়েটিকে কোনো নির্যাতন করা হয়নি বলেও দাবি করেন আসাদুর রহমান।

এম/এ/হ

অনুগ্রহ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

এ সম্পর্কীত আরো সংবাদ