1. [email protected] : dalim :
  2. [email protected] : dalim1 :
সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ০১:২৪ পূর্বাহ্ন

বেসরকারি হাসপাতালে অতিরিক্ত বিল আদায় বন্ধে হাইকোর্টে রিট

  • প্রকাশিত হয়েছে : রবিবার, ২৬ জুলাই, ২০২০
  • ৫৭৬ বার পঠিত হয়েছে

ল লাইফ রিপোর্ট: বেসরকারি হাসপাতালে রোগীদের নিকট থেকে  অতিরিক্ত বিল আদায় বন্ধে মনিটরিং সেল গঠনের নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট দায়ের করা হয়েছে। রিটে দেশের সকল বৈধ ও লাইসেন্সপ্রাপ্ত  হাসপাতাল, ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও করোনা চিকিৎসার জন্য নির্ধারিত হাসপাতালের তালিকা  প্রকাশের নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে। এছাড়া বেসরকারি রিজেন্ট হাসপাতালে ভূয়া করোনা টেস্টের শিকার ব্যক্তিদের তালিকা প্রকাশ,তাদের কাছ থেকে টেস্টের নামে নেওয়া টাকা ফেরত এবং প্রত্যেক ক্ষতিগ্রস্থকে অন্তবর্তীকালীন ২৫ হাজার টাকা প্রদানের নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে। একইসঙ্গে প্রতিটি থানায় স্বাস্থ্য মনিটরিং কমিটি করতে  বলা হয়েছে।

রোববার সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট ইশরাত হাসানের পক্ষে ব্যারিস্টার আব্দুল হালিম এ  রিট দাখিল করেন।

বিচারপতি তারিক উল হাকিমের নেতৃত্বাধীন হাইকোর্ট বেঞ্চে রিট আবেদনটির ওপর চলতি সপ্তাহে শুনানি হতে পারে।

স্বাস্থ্য সচিব, স্বরাষ্ট্র সচিব ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ও রিজেন্ট হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালককে রিটে বিবাদী করা হয়েছে।

এর আগে ১৯ জুলাই এ বিষয়ে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট ইশরাত হাসানের পক্ষে ব্যারিস্টার আব্দুল হালিম এ নোটিশ পাঠান।

নোটিশে বলা হয়, লাইসেন্সবিহীন রিজেন্ট হাস্পাতালের সাথে স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয় এর চুক্তি, বুথ বানিয়ে করোনা টেস্ট এর অনুমতি প্রদান করেছে। যা  চরম দায়িত্বহীনতা ও মানবাধিকার লংঘনের পরিচয়। ভুয়া করোনা টেস্ট এর রিপোর্ট প্রদান করে রিজেন্ট হাস্পাতাল জনগনের সাথে চরম ভাবে প্রতারণা করেছে। তাই প্রতারিত পরিবারদেরকে ক্ষতিপূরণ দিতে হবে।

মাশরুমের মতো গড়ে ওঠা লাইসেন্সবিহীন হাসপাতাল, করোনা টেস্টের ভুয়া রিপোর্ট নিয়ে বিদেশ ভ্রমন, বেসরকারি হাস্পাতালের চিকিৎসা সেবা, বিল নিয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয় এর কার্যত কোন পদক্ষেপ নেই। যা জনগনের  বেঁচে থাকার সাংবিধানিক অধিকারকে সুস্পষ্টভাবে লংঘন করেছে।

অ্যাডভোকেট ইশরাত হাসান বলেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রনালয় এর  দায়িত্বহীনতা আমাদের ভীষণ আঘাত করেছে। আমাদের স্বাস্থ্যসেবা পাওয়ার মৌলিক অধিকারকে লংঘিত করেছে। চোখের সামনে বেসরকারি হাসপাতালগুলির প্রতারণা দেখেও স্বাস্থ্য  মন্ত্রনালয় চোখ বন্ধ করে আছে। জনগনের স্বাস্থ্য সুরক্ষার দায়িত্বে থেকে দায়িত্ব পালনে চরমভাবে ব্যর্থ হয়েছে।

অনুগ্রহ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

এ সম্পর্কীত আরো সংবাদ