1. [email protected] : dalim :
  2. [email protected] : dalim1 :
সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১, ১২:৪২ পূর্বাহ্ন

মানববন্ধনে ব্যারিস্টার আসিফের বাবার কান্না,হত্যাকারীদের গ্রেফতার দাবি

  • প্রকাশিত হয়েছে : মঙ্গলবার, ১৩ অক্টোবর, ২০২০
  • ৮০১ বার পঠিত হয়েছে

ল লাইফ রিপোর্ট :সুপ্রিম কোর্টের তরুণ আইনজীবী  ব্যারিস্টার আসিফ ইমতিয়াজ খান জিসাদের মৃত্যুর ঘটনায় দায়ের মামলায় আসামিদের অবিলম্বে গ্রেফতার ও মামলার সুষ্ঠু তদন্তের দাবি জানিয়ে মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়েছে।

মঙ্গলবার দুপুরে সুপ্রিম কোর্ট বার ভবনের সামনে মানববন্ধনে অর্ধ-শতাধিক আইনজীবী অংশগ্রহণ করেন।

মানববন্ধনে  আসিফের পিতা সাবেক সংসদ সদস্য   ও সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট শহীদুল ইসলাম  খান  কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে বলেন, আমি একজন হতভাগ্য সন্তানের পিতা। আমার সন্তান ছিল অত্যান্ত মেধাবী। সে তার প্রতিটি রেজাল্টে মেধার স্বাক্ষর রেখেছিলো। কানাডায় তার পিএইচডি করার কথা ছিলো।  তিনি অভিযোগ তুলে বলেন, ছেলের শ্বশুর, শাশুড়ি, শ্যালক ও স্ত্রী হলো হত্যাকারী।

তিনি বলেন, আমার ছেলে কাপুরুষ না বা এতোটা দুর্বল মানসিকতার না যে সে আত্নহত্যা করবে। সে চেয়েছিল লেখা পড়া শেষে সুপ্রিমকোর্টের বিচারপতি হবে। মানুষের সেবা করবে। আমার দুঃখ হলো, আমার ছেলেকে  হত্যার ঘটনায় দায়ের হওয়া মমালায় কাউকে গ্রেফতার করা হলো না। কাউকে জিজ্ঞাসাবাদও করা হলো না। মামলাটি এখন পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিআইবিতে) তদন্ত চলছে বলেও জানান তিনি।

মানবন্ধনে সুপ্রিমকোর্টের  আইনজীবী সমিতির সাবেক সম্পাদক ড. মো, বশির আহমেদ অ্যাডভোকেট মোমতাজ উদ্দিন আহমেদ মেহেদী, ব্যারিস্টার নাসির উদ্দিন অসিম, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির অর্থ সম্পাদক ব্যারিস্টার রাগিব রউফ চৌধুরী,ব্যারিস্টার খান মো: শামীম আজিজ,অ্যাডভোকেট দাউদুর রহমান মিনা,   কাজী জয়নুল আবেদীন প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

বক্তারা ব্যারিস্টার আসিফ হত্যা মামলার আসামিদের দ্রুত গ্রেফতারের দাবি জানান।

গত ১৭ সেপ্টেম্বর ব্যারিস্টার আসিফ জিসাদের মৃত্যুর ঘটনায় তার স্ত্রী সাবরিনা শাহীদ নিশিতাসহ চারজনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করা হয়। মামলার অন্য আসামিরা হলেন-আসিফ ইমতিয়াজের শ্বশুর এ এস এম শহিদুল্লাহ মজুমদার, শাশুড়ি রাশেদা শহীদ ও শ্যালক সায়মান শহীদ নিশাত। আসিফের বাবা শহিদুল ইসলাম খান বাদী হয়ে ঢাকার চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এই মামলা দায়ের করেন।

ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট সাদবীর ইয়াছির আহসান চৌধুরী কলাবাগান থানাকে অভিযোগটি নিয়মিত মামলা হিসেবে গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন।

উল্লেখ্য, গত ১১ সেপ্টেম্বর শুক্রবার ভোর ৯ তলার বারান্দা থেকে ‘লাফিয়ে পড়ে’সুপ্রিম কোর্টের তরুণ আইনজীবী ব্যারিস্টার আসিফ ইমতিয়াজ খান জিসাদের (৩৩) মৃত্যু হয়।   কাঁঠালবাগান এলাকার ফ্রি স্কুল স্ট্রিটের একটি ভবনের নিচ থেকে   ভোরে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে নেওয়ার পর তাঁর মৃত্যু হয়।

আসিফ সিরাজগঞ্জ-৫ আসনের জাতীয় পার্টির সাবেক সাংসদ শহিদুল ইসলাম খানের ছেলে। কাঁঠালবাগান এলাকায় একটি ভবনের নবম তলায় শ্বশুরবাড়িতে থাকতেন তিনি। ওই ভবনের নিচ থেকে ভোরে রক্তাক্ত অবস্থায় তাঁকে উদ্ধার করা হয়।

 

আসিফকে প্রথমে গ্রিন লাইফ হাসপাতাল, পরে স্কয়ার হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখান থেকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর তিনি মারা যান।

আসিফ ব্যারিস্টারি পাশ করে সুপ্রিম কোর্টে প্র্যাকটিস করছিলেন। চার বছর আগে সাবরিনা শাহিদ নিশিতার সঙ্গে প্রেমের বিয়ে হয়। বাবা-মা কানাডা থাকায় আসিফ কাঁঠালবাগান শ্বশুর বাড়িতেই থাকতেন। তাদের কোনো সন্তান নেই। সম্প্রতি আসিফ স্ত্রীসহ কানাডা সেটেলড হওয়ার জন্য সব প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেছিলেন।

 

অনুগ্রহ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

এ সম্পর্কীত আরো সংবাদ