1. [email protected] : dalim :
  2. [email protected] : dalim1 :
শনিবার, ২২ জানুয়ারী ২০২২, ০৯:২৭ পূর্বাহ্ন

হাইকোর্টের যুগান্তকারী রায়:বৃদ্ধ মাকে সেবা করতে কারাগারে নয়, বাড়িতে থাকবেন মতি মাতবব

  • প্রকাশিত হয়েছে : রবিবার, ৮ নভেম্বর, ২০২০
  • ৪৩৭ বার পঠিত হয়েছে

ল লাইফ রিপোর্ট: মাদক মামলায় ৫ বছরের সাজাপ্রাপ্ত শরিয়তপুরের মতি মাতববকে কারাগারে না পাঠিয়ে বাড়িতে প্রবেশনে পাঠিয়ে তাকে সংশোধনের সুযোগ দিয়েছেন হাইকোর্ট।  সমাজ সেবা  অধিদপ্তরের অধীনে দেড় বছর  প্রবেশনে থাকাকালীন তাকে তিনটি শর্ত পালন করতে হবে।

 

শর্তগুলো হলো: ১. ৭৫ বছরের মাকে সেবা ও দেখাশুনা করতে হবে। ২. দুই সন্তানের লেখাপড়া নিশ্চিত করতে হবে ও ৩. মেয়েকে বাল্য বিবাহ দেওয়া যাবে না। এ শর্তগুলো ভঙ্গ করলে তাকে আবারও কারাগারে যেতে হবে বলে আদেশ  দেন আদালত। অন্যদিকে প্রবেশনের শর্ত সঠিক ভাবে পালন করলে তাহলে তার ৫ বছরের সাজা বাতিল হয়ে যাবে।

 

রোববার বিচারপতি জাফর আহমেদের হাইকোর্টের একক বেঞ্চ এক রিভিশন মামলায় এই আদেশ দেন।

 

আদালতে আসামির পক্ষে শুনানী করেন আইনজীবী মোহাম্মদ শিশির মনির। তাকে সহযোগিতা করেন আইনজীবী মো: রুহুল আমীন এবং এডভোকেট মোঃ আসাদ উদ্দিন। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এনামুল হক মোল্লা।

 

পরে আইনজীবী শিশির মনির র বলেন, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইনে আসামী মতি মাতবরের ৫ বছরের সাজার বিরুদ্ধে হাইকোর্টে দায়েরকৃত রিভিশন মামলার রায়ে আসামির সাজা বহাল রেখে প্রবেশন প্রদান করেন। এটি বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রবেশন  বিশেষ আইনে এটি প্রথম রায়। যা অত্যন্ত আশাপ্রদ এবং যুগান্তকারী।

 

মামলার বিবরণে জানা যায়, আসামি  মতি মাতবর এবং অপর একজন আসামীর নিকট ৪১১ পিস এবং ৭০০ পিছ ইয়াবা উদ্ধারের অভিযোগে ২০১৫ সালের ২৩ নভেম্বরে ঢাকার কোতোয়ালী থানায় একটি মামলা দায়ের হয়। পুলিশ আসামিদের বিরুদ্ধে  তদন্ত শেষে পুলিশ ২৪ নভেম্বর ২০১৫ তারিখে চার্জশীট দাখিল করে। এই মামলায় ৮ জানুয়ারী ২০১৭ তারিখে  যুগ্ম মহানগর হাকিম আদালত আসামীদের ৫ বছরের সশ্রম কারাদন্ড ও ২০ হাজার টাকা জরিমানা প্রদান করেন।

 

উক্ত রায়ে সংক্ষুব্ধ হয়ে আসামীরা  মহানগর দায়রা আদালতে ফৌজদারী আপীল করেন। ১১ মে ২০১৭ তারিখে আপীল শুনানি নিয়ে  অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ, আদালত বিচারিক আদালতের রায় বহাল রাখেন।

 

পরে আসামী মতি মাতবর ১ জুলাই ২০১৭ তারিখে হাইকোর্ট বিভাগে রিভিশন মামলা দায়ের করেন। রিভিশন মামলার শুনানি শেষে আদালত আসামিকে কারাগারে না পাঠিয়ে প্রবেশনে পাঠালেন। এই মামলার অপর আসামি পলাতক আছেন।

অনুগ্রহ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

এ সম্পর্কীত আরো সংবাদ