1. [email protected] : dalim :
  2. [email protected] : dalim1 :
বুধবার, ১৮ মে ২০২২, ১১:১৬ অপরাহ্ন

চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনে ভোটগ্রহণে বাধা নেই

  • প্রকাশিত হয়েছে : বুধবার, ২৬ জানুয়ারী, ২০২২
  • ৩৮ বার পঠিত হয়েছে

ল লাইফ রিপোর্টঃ আগামী ২৮ জানুয়ারি অনুষ্ঠেয় বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির ১৭তম নির্বাচন স্থগিত করেনি হাইকোর্ট। ফলে ওইদিন শিল্পী সমিতির ভোটগ্রহণে কোনো বাধা নেই।

একইসঙ্গে, হাইকোর্টের জারি করা রুলে আরও ৮৭ জন বাদ পড়া সদস্য শিল্পীকে পক্ষভুক্ত করা হয়েছে। তবে, বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনে ভোটার তালিকা থেকে বাদ পড়া শিল্পীদের ‍রিটের বিষয়ে জারি করা রুল শুনবেন আদালত।

যেহেতু নির্বাচনের আর দুইদিন বাকি, সে জন্য আদালত নির্বাচন স্থগিত করেননি। তবে সম্পূরক রুল চেয়ে যে আবেদন ছিল, সেটি নথিভুক্ত করেছেন আদালত। পাশাপাশি নতুন করে ৮৭ জনের অন্তর্ভুক্তির আবেদন গ্রহণ করেছেন। এখন রুলের চুড়ান্ত শুনানি শেষে আদালত রায় ঘোষণা করবেন বলে জানিয়েছেন রিটকারীদের আইনজীবী অ্যাডভোকেট শাহ মনজুরুল হক।

নির্বাচন স্থগিত চেয়ে দায়ের করা আবেদনের শুনানি নিয়ে বুধবার (২৬ জানুয়ারি) বিচারপতি মো. খসরুজ্জামান ও মো. মাহমুদ হাসান তালুকদারের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতে আজ রিটকারী শিল্পীদের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন অ্যাডভোকেট শাহ মনজুরুল হক। তার সঙ্গে ছিলেন রিটকারী আইনজীবী মো. মামুন অর রশিদ, অ্যাডভোকেট পলাশ চন্দ্র রায়, অ্যাডভোকেট হারুনুর রশিদ ও অ্যাডভোকেট তারিকুল ইসলাম। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অরবিন্দু কুমার রায়।

অন্যদিকে, চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সেক্রেটারি জায়েদ খানের পক্ষে শুনানি করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী অ্যাডভোকেট ইউসুফ হোসেন হুমায়ন, অ্যাডভোকেট আহসানুল করিম ও অ্যাডভোকেট নাহিদ সুলতানা যুথি।

আইনজীবী অ্যাডভোকেট শাহ মনজুরুল হক জানান, অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া নির্বাচন যেহেতু আগামী ২৮ জানুয়ারি, আর ভোটের দিন যেহেতু ঘনিয়ে এসেছে, তাই চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনে ভোটগ্রহণ স্থগিত করেননি হাইকোর্ট। তবে, বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনে ভোটার তালিকা থেকে বাদ পড়া শিল্পীদের ‍রিটের বিষয়ে জারি করা রুল শুনবেন আদালত। একইসঙ্গে হাইকোর্টের জারি করা রুলে আরও ৮৭ জন বাদ পড়া সদস্য শিল্পীকে পক্ষভুক্ত করা হয়েছে। ওই রুলটি আদালত শুনবেন। তবে কবে শুনবেন সেটি নিদিষ্ট করে বলেননি আদালত।

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অরবিন্দু কুমার রায় জানান, আদালত বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনে স্থগিতাদেশ দেননি। আদালত বলেছেন, ভোটার তালিকা থেকে বাদ পড়া শিল্পীদের রুল প্রস্তুত হলে আদালত শুনবেন। এই রুলে আরও ৮৭ শিল্পীকে অন্তর্ভুক্ত করেছেন আদালত।

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচনে বাংলার সুপার স্টার খ্যাত ইলিয়াস কাঞ্চন-নিপুণের নেতৃত্বে একটি প্যানেল ও মিশা সওদাগর-জায়েদ খানের নেতৃত্বে আরেকটি প্যানেল প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির ১৭তম নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে আগামী ২৮ জানুয়ারি। এই উপলক্ষে মনোনয়নপত্র জমা দিয়ে নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণাও চালাচ্ছেন প্রার্থীরা।

কোনো ধরেনের নোটিশ ছাড়া শিল্পী সমিতির ১৮৪ জন পূর্ণ সদস্যকে সহযোগী সদস্য করা হয়েছে। ফলে তারা ভোটার তালিকা থেকে বাদ পড়েছেন। কারণ পূর্ণাঙ্গ সদস্য হলে তাদের ভোট দিতে কোনো সমস্যা হওয়ার কথা না। এরপর ওই সহযোগী সদস্যদের পক্ষ থেকে ১৬ জন তাদের পূর্ণাঙ্গ সদস্যপদ ফিরে পেতে উচ্চ আদালতে রিট আবেদন করেন। ওই রিটের শুনানি নিয়ে গত ১১ জানুয়ারি শিল্পী সমিতির পুরোনো সদস্যদের সহযোগী সদস্য করা কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন হাইকোর্ট। সংশ্লিষ্টদের ১০ দিনের মধ্যে ওই রুলের জবাব দিতে বলা হয়।

আইনজীবীরা জানান, বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির দ্বিবার্ষিক (২০২২-২৩ মেয়াদের) নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে আগামী ২৮ জানুয়ারি। এই নির্বাচনকে কেন্দ্র করে চলচ্চিত্র সরগরম হয়ে উঠেছে। নির্বাচন কমিশন এরই মধ্যে একটি খসড়া ভোটার তালিকা প্রকাশ করেছে। তাতে দেখা যায়, শিল্পী সমিতির ভোটার সংখ্যা ৪২৮ জন। তার মধ্যে ৪৮ জন আজীবন সদস্য। গঠনতন্ত্র অনুসারে যারা আজীবন সদস্য তারা ভোট দিতে পারলেও প্রার্থী হতে পারবেন না। কিন্তু অমীমাংসিত রয়ে গেছে, সদস্য পদ স্থগিত হওয়া ১৮৪ জনের বিষয়টি।

তারা বলেন, ২০১৮ সালে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির ১৮৪ সদস্যকে পূর্ণ সদস্য থেকে সহযোগী সদস্য করার ঘটনা ঘটে। সমিতির ১৮৪ জন সদস্যকে কোনো যুক্তি, কারণ ও নোটিশ ছাড়াই পূর্ণ থেকে সহযোগী সদস্য করা হয়েছে। এর ফলে তারা তাদের ভোটাধিকার হারিয়েছেন। এটি চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে আবেদন করা হলে আদালত রুল জারি করেন।

শিল্পী সমিতির গঠনতন্ত্র ৬-এর (ক)-তে বলা আছে, একজন অভিনয়শিল্পী বিতর্কিত নয় এমন পাঁচটি ছবির গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করে থাকলে পূর্ণ সদস্যের জন্য আবেদন করতে পারবেন। এরপর কার্যকরী পরিষদের অনুমতিক্রমে সেই ব্যক্তি শিল্পী সমিতির পূর্ণ সদস্য হতে পারবেন।

নির্বাচন ও কমিটির মেয়াদ নিয়ে সমিতির গঠনতন্ত্রের ৮ নম্বর অনুচ্ছেদের (চ)-এ আছে, পূর্ববর্তী কার্যকরী পরিষদের মেয়াদান্তে অতিরিক্ত ৯০ দিনের মধ্যে অবশ্যই নির্বাচন হতে হইবে।

অনুগ্রহ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

এ সম্পর্কীত আরো সংবাদ