1. [email protected] : dalim :
  2. [email protected] : dalim1 :
মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ১১:৫৯ পূর্বাহ্ন

বিদেশি স্ত্রীকে বাড়ি উইল: স্পেশাল ম্যারিজ রেজিস্টারকে হাইকোর্টে তলব

  • প্রকাশিত হয়েছে : মঙ্গলবার, ২ মার্চ, ২০২১
  • ১১৮ বার পঠিত হয়েছে

ল লাইফ রিপোর্ট: সঙ্গীতশিল্পী ফেরদৌস ওয়াহিদের ভাই মোস্তফা জগলুল ওয়াহিদের তার বিদেশি স্ত্রীকে বাড়ি উইল করার ঘটনায় স্পেশাল ম্যারিজ রেজিস্টারকে তলব করেছেন হাইকোর্ট। আগামী ৮ মার্চ (সোমবার) তাদের বিয়ে সংক্রান্ত নথিসহ হাজির হতে বলা হয়েছে।

মঙ্গলবার (০২ মার্চ) বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি মহি উদ্দিন শামীমের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক। অপরপক্ষে ছিলেন আইনজীবী মনজিল মোরসেদ। পরে আইনজীবী মনজিল মোরসেদ ঢাকা পোস্টকে বলেন, জগলুল ওয়াহিদের তার বিদেশি হিন্দু স্ত্রীকে বিয়ে সংক্রান্ত নথিপত্র দেখতে স্পেশাল ম্যারিজ রেজিস্টারকে তলব করা হয়েছে।

গত বছরের ৩ ডিসেম্বর জগলুল ওয়াহিদের তার বিদেশি স্ত্রীকে বাড়ি উইল করা নিয়ে আইনগত বিষয়ে মতামত দেওয়ার জন্য চার অ্যামিকাস কিউরি নিয়োগ দেন হাইকোর্ট। তারা হলেন- সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল এ এফ হাসান আরিফ, সিনিয়র আইনজীবী কামরুল হক সিদ্দিকী, কামাল-উল-আলম ও মো. নুরুল আমিন। পরে আদালতের স্পেশাল ম্যারেজ অ্যাক্ট ১৮৭২ অনুসারে কোনো মুসলিম কোনো হিন্দু নারীকে বিয়ে করতে পারেন কি না এবং সে স্ত্রী হিসাবে তাকে দেওয়া জগলুল ওয়াহিদের সম্পূর্ণ বাড়ি উইল করার আইনগত ভিত্তি বিষয়ে মতামত দেন অ্যামিকাস কিউরিরা।

আদালতে জগলুল ওয়াহিদের দুই মেয়ের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মনজিল মোরসেদ। তার দ্বিতীয় স্ত্রী আঞ্জু কাপুরের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার মাসুদ আর সোবহান।

গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন নজরে নিয়ে ওই বছরের ২৬ অক্টোবর সন্ধ্যায় হাইকোর্ট বেঞ্চ স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে আদেশ দেন।আদেশে অনতিবিলম্বে তাদের বাবা মোস্তফা জগলুল ওয়াহিদের গুলশান-২ এর ৯৫ নম্বর সড়কের বাসায় প্রবেশ নিশ্চিত করতে নির্দেশ দেন। একইসঙ্গে রাতেই ওই বাড়িতে তাদের প্রবেশ ও অবস্থান নিশ্চিত করার পরই গুলশান থানার ওসিকে সুপ্রিম কোর্টের স্পেশাল অফিসারকে টেলিফোনে অগ্রগতি প্রতিবেদন দিতে বলা হয়।

এ আদেশের পর ওইদিন রাতেই দুই বোন মুশফিকা মোস্তফা ও মোবাশশারা মোস্তফাকে বাসায় উঠিয়ে দিয়ে তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করে গুলশান থানা পুলিশ এবং বাড়ির সামনে পর্যাপ্ত নিরাপত্তার ব্যবস্থা করেন।

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক জানান, গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুসারে প্রায় ১০ কাঠা জমির ওপর বাড়িটি। গৃহকর্তার মৃত্যুর পর মালিকানা নিয়ে বিরোধে তার দুই মেয়ে অবস্থান নিয়েছেন বাড়ির সামনে। ওই দুই বোনের দাবি, বাড়ির দখল বাবার দ্বিতীয় স্ত্রী আঞ্জু কাপুরের হাতে। তিনি কিছুতেই ওই বাড়িতে তাদের ঢুকতে দিচ্ছেন না। ১০ অক্টোবর মোস্তফা জগলুলের মৃত্যু হয়। মোস্তফা জগলুল ওয়াহিদ পেশায় পাইলট ছিলেন। ভাই বোনদের মধ্যে শুধু সংগীতশিল্পী ফেরদৌস ওয়াহিদ ছাড়া আর কেউ বাংলাদেশে নেই। দুই দিন ধরে বাড়ির সামনে অবস্থান নেয় মোস্তফা জগলুল ওয়াহিদের দুই মেয়ে মুশফিকা ও মোবাশ্বেরা তারা বাড়িতে ঢোকার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়েছেন।

মুশফিকা গণমাধ্যমকে বলেছিলেন, ১৯৮৪ সালে তার বাবা মাকে নিয়ে গুলশানের এই বাসাতেই সংসার শুরু করেছিলেন। তাদের জন্ম এই বাড়িতে। ২০০৫ সালে তাদের মা-বাবার বিচ্ছেদ হয়। পরে আঞ্জু কাপুর নামের এক ভারতীয়কে তাদের বাবা বিয়ে করেন। তিনি একাই এখন এই বাড়ির ভোগদখল করছেন বলে জানা গেছে।

অনুগ্রহ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

এ সম্পর্কীত আরো সংবাদ