1. [email protected] : dalim :
  2. [email protected] : dalim1 :
মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:৫৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
সমাজের অসঙ্গতি তুলে ধরাই সাংবাদিকদের কাজ : হাইকোর্ট বিদেশ যেতে নিষেধাজ্ঞা: দুদকের আবেদন পর্যবেক্ষণসহ নিষ্পত্তি পাঠ্যবইয়ে ভুল : এনসিটিবির চেয়ারম্যানকে হাইকোর্টে তলব মুনিয়াকে ধর্ষণের পর হত্যা: রিপনের হাইকোর্টে আগাম জামিন সরকারি কর্মচারীদের গ্রেফতারে পূর্বানুমতি কেন অবৈধ নয় সাবেক প্রতিমন্ত্রী আবদুল মান্নান দম্পতির বিচার শুরু বৃদ্ধা আছিয়াকে হাজির করতে এবার পুলিশকে নির্দেশ দিলেন হাইকোর্ট সিজিএম মোঃ শওকত আলীর সুস্থতা কামনায় ভার্চুয়াল দোয়া মাহফিল ই-কমার্স গ্রাহকদের স্বার্থরক্ষায় ৩৩ ভুক্তভোগীর রিট আসামির শরীরে ক্ষতচিহ্ন; স্বপ্রণোদিত হয়ে তদন্তের নির্দেশ দিলেন আদালত

হাইকোর্টে প্রতিবেদনঃ ময়না তদন্তে ‘নারী’ ডিএনএ রিপোর্টে ‘পুরুষ’

  • প্রকাশিত হয়েছে : সোমবার, ৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ১৭২ বার পঠিত হয়েছে

ল লাইফ রিপোর্টঃ গৃহবধূ পুতুল ‘নিখোঁজ’ হলো। কিছুদিন পর একই এলাকায় একটি অর্ধগলিত ‘কঙ্কাল প্রায়’ লাশ মিললো। ময়না তদন্ত প্রতিবেদনে তাকে নারী বললেও ডিএনএ রিপোর্ট তাকে ‘পুরুষ’ বলল।

ঘটনার শুরু ২০১৫ সালের ১৯ অক্টোবর। ওইদিন সিলেটের জৈন্তাপুরে বাবার বাড়িতে থাকা গৃহবধূ পুতুলের মোবাইল একটি কল আসে। সে কলের পর ঘর থেকে বের হয়ে পুতুল নিখোঁজ হন। এরপর ওই বছরের ৩ নভেম্বর পুতুলের মা মেয়ে নিখোঁজের ঘটনায় থানায় একটি জিডি করেন। একপর্যায়ে পুলিশ পুতুলের স্বামী ওমর ফারুক দোলনকে গ্রেপ্তার করে। এরপর ওই বছরের ৪ নভেম্বর সিলেটের জৈন্তাপুর থানায় মামলা করেন নিহতের মা আনোয়ারা বেগম। সে মামলার অভিযোগে বলা হয়, ‘নিখোঁজের দিন টেলিফোনে ডেকে নিয়ে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে পাথর দিয়ে মাথায় আঘাত করে পুতুলকে হত্যা করে তার স্বামী।’ এই মামলার পরদিন ওই বছরের ৫ নভেম্বর আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী দেয় ওমর ফারুক।

অন্যদিকে, ওই বছরের ৩১ অক্টোবর সিলেটের জাফলং ভ্যালী বোর্ডিং স্কুল পার্শ্ববর্তী পাহাড়ী নালার পাশের জঙ্গল থেকে একটি অর্ধগলিত ‘কঙ্কাল প্রায়’ লাশ উদ্ধার করে জৈন্তাপুর থানা পুলিশ। পরে ময়না তদন্ত প্রতিবেদনের জন্য ‘লাশ’টি সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। ময়না তদন্ত প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘এটি ২-৩ মাস আগে মৃত কোন নারীর লাশ বলে প্রাথমিকভাবে প্রতীয়মান।’ তবে পরিচয় নিশ্চিত হতে ‘কঙ্কাল প্রায়’ লাশটির ডিএনএ পরীক্ষার জন্য নমুনা সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে হাসপাতালে পাঠানো হয়। ২০১৬ সালের ৪ ডিসেম্বর ডিএনএ রিপোর্ট দেওয়া হয়। সে রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়েছে, লাশটি কোনো পুরুষের। আর এই ডিএনএ’র সাথে পুতুলের বাবা-মায়ের জৈবিক কোন মিল নেই। এমন বাস্তবতায় মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সেই ‘কঙ্কাল প্রায়’ লাশটির ডিএনএ পুনরায় পরীক্ষা করার উদ্যোগ নেন বলে মামলায় উল্লেখ করেন। তবে লাশটির কবর চিহ্নিত করতে না পারায় পুনরায় ডিএনএ পরীক্ষা করা সম্ভব হয়নি।

একপর্যায়ে ২০১৭ সালের ১২ মার্চ পুতুলের স্বামী ওমর ফারুকের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দেয় পুলিশ। বর্তমানে সিলেটের তৃতীয় অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতে বিচারাধীন মামলাটি সাক্ষ্যগ্রহণ পর্যায়ে রয়েছে। সর্বশেষ এই মামলায় জামিন চেয়ে হাইকোর্টে আবেদন করেন ওমর ফারুক। সে আবেদনের শুনানি নিয়ে রোববার বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ ওমর ফারুককে জামিন না দিয়ে পুতুল হত্যা মামলাটি ৬ মাসের মধ্যে নিষ্পত্তির নির্দেশ দেন। সেই সাথে এবিষয়ে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়। আদালতে আসামিপক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মোহাম্মদ শিশির মনির। আর রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মো. সারওয়ার হোসেন বাপ্পী।

অনুগ্রহ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

এ সম্পর্কীত আরো সংবাদ