1. [email protected] : dalim :
  2. [email protected] : dalim1 :
শুক্রবার, ২৫ জুন ২০২১, ০৮:৪৪ পূর্বাহ্ন

নারী উদ্যোক্তা আইনজীবী মুন দাসের না বলা গল্প

  • প্রকাশিত হয়েছে : রবিবার, ৯ মে, ২০২১
  • ২৭৪ বার পঠিত হয়েছে

ল লাইফ রিপোর্ট:  অ্যাডভোকেট মুন দাস। একজন নারী উদ্যোক্তা।  তিনি জামদানিসহ অন্যান্য দেশীয় পণ্যের প্রচার ও প্রসারে কাজ করে যাচ্ছেন। উদ্যোক্তা হিসেবে তার পথাচলা শুরুর গল্প তিনি নিজেই তুলে ধরেছেন। শুনুন তার মুখে সেই গল্প….‘আমি একজন আইনজীবী এবং একজন উদ্যোক্তা। আমার বিজনেস পেইজ এর নাম  Traditional store BD । আমি প্রথমে দিকে  তাত শাড়ী ব্লক বাটিক নিয়ে কাজ করেছি। কিন্তু আমার উদ্যোক্তা হওয়ার পিছনে লক্ষ্য ছিল বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী ঢাকাই জামদানী  তাতিদের হাতে বুনন করা হয় এই পন্য নিয়ে কাজ করবো। কিন্তু আমার মনে হয়েছে এই বিষয় এ আমাকে আরও অনেক জানতে হবে। তাই আমি জামদানী নিয়ে গবেষনা শুরু করি এবং সেই সাথে অন্যান্য দেশি পন্য নিয়ে ও কাজ করে নিজেকে ব্যস্ত রাখি। কারন আমার মাল্টি ট্যাক্স কাজ ভালো লাগে। জানি আমি এটা সহজ নয় কিন্তু আমার জানার আগ্রহ থেকেই আমি নিজেকে মাল্টি ট্যাক্স কাজে ব্যস্ত রাখি। আমার খুব ইচ্ছে আমি অবহেলিত মানুষের জন্য কিছু করবো।  আর তার জন্য আমাকে প্রথমে প্রতিষ্ঠিত হতে হবে। আমি সেই লক্ষ্য নিয়ে ঢাকাই জামদানী সিলেক্ট করি যেন তাতিদের সার্বিক সমস্যা গুলো দূর করতে আমাদের এগিয়ে আসতে হবে৷বাংলার তাতিদের হাতে বুনন করা জামদানী পৃথিবীর আর কোথায় ও এই প্রক্রিয়ার তৈরি হয় না। আমাদের এই সৃস্টি যেন একদিন জাদুঘরেই স্থান না পায় সেই চেস্টা একজন উদ্যোক্তা হিসেবে আমার দ্বায়িত্ব। প্রতিটি জেলার উদ্যোক্তারা এগিয়ে আসলে জামদানী কে বাচানো সম্ভব।  দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশে যত রপ্তানি হবে আমাদের অর্থনৈতিক সমস্যা এবং আমাদের তাতিদের সার্বিক সমস্যা এবং সর্বোপরি আমাদের দেশের বেকারত্ব ও দূর করা যাবে বলে আমি মনে করি। একজন উদ্যোগক্তা শুধু নিজে বড় হতে ফেমাস হতে উদ্যোক্তা হতে আসে না। একজন উদ্যোক্তার চিন্তাই থাকে সুদুরপ্রসারি এবং একটি স্মরনীয় পরিবর্তন যেন হতে পারে তার দ্বারা। আমার চেস্টা ঠিক এমন কিছু করার এবং চেস্টা চলবে আপনাদের সকলের সহযোগিতায়।

 

★★ আমার ক্রিয়েশন জামদানী ★টাই এবং জামদানী বো টাই, জামদানী ফতুয়া,

★ঢাকাই জামদানী বাংলার ঐতিহ্য।মেশিনে বুনন করা জামদানীর ভীড়ে বাংলার অনবদ্য সৃস্টি যেন হারিয়ে না যায় সেই চিন্তা থেকেই আমার জামদানী নিয়ে কাজ করার উদ্যোগ গ্রহন করা। আমাদের সচেতনতাই পারে বাংলা এই অনবদ্য সৃস্টি কে বাচিঁয়ে রাখতে। তাই নিজে সচেতন হই এবং অন্য দের জানাই। হাতে বুনন ঢাকাই জামদানী কিনি।

 

★তাঁতি বাঁচলে বাঁচবে তাত, বাঁচবে দেশ।

 

 

 

“স্টার্টআপ ”

স্টার্টআপ বলতে আমি যেটুকু বুঝি আমি একজন উদ্যোক্তা এবং আমার উদ্যোগের মাধ্যমে যখন নতুন কিছু তৈরি হবে যা দেশের এবং দেশের মানুষের জন্য এমন কোন পরিবর্তন নিয়ে আসতে পারে, বা আমার নতুন কোন কাজের দ্বারা যে পরিবর্তন আসবে এটিই হবে আমার স্টার্টআপ।

 

★যেমন আমি ঢাকাই জামদানী কাপড় নিয়ে কাজ করছি এখন ঢাকাই জামদানী শাড়ী, পাঞ্জাবী, থ্রিপিস সবাই পরে এবং জানে৷

 

★কিন্তু এই জামদানী দিয়ে ” টাই ” এবং ” জামদানী কটি” করছি যেটা আর কেউ করেনি।

 

★একখন আমার স্টার্টআপ কেন সফল হবে?  এই পন্য গুলো যদি সবাই ব্যবহার করতে স্বাচ্ছন্দ মনে করে এবং বুঝে যে জামদানী পন্য টিকিয়ে রাখতেই আমার এই ভাবনা সেই সাথে সারা বিশ্বে ছাড়িয়ে পড়তে পারে জামদানী ”টাই” এবং” জামদানী  কটি” তাহলে আমার তৈরি পন্য গুলো সুনাম অর্জন করবে এবং দেশের এবং দেশের মানুষের এর পোশাক এর একটি ”টাই ” এবং কটি এর চাহিদা পুরন হবে।

 

★ যত বেশি টাই এবং জামদানী কটি এর চাহিদা বাড়বে জামদানীর উৎপাদন তত বাড়বে। জামদানী তৈরি যেহেতু সময়সাপেক্ষ কিন্তু কারিগর এর সল্পতা এতে ভালো বেতন ভাতা পেলে কর্মহীন  রা জামদানী কাজ শিখতে চাইবে।

 

★জামদানী কারিগর রা তাদের সন্তান দের কে এই পেশায় আসতে দিতে চায় না। তাদের পন্য গুলো বিক্রি হবেই সেই নিশ্চয়তা তারা পাচ্ছেনা। কেউ কাজ শিখতে চায়না পর্যাপ্ত সুযোগ সুবিধে পাচ্ছেনা বলে।

 

★ ★★তাহলে আমার স্টার্টআপ সফল হলে প্রিতিটি সেক্টরের মানুষ উপকৃত হবে।যেমন ” টাই ” ও কটির চাহিদা কখনোই কমবেনা।বাংলাদেশ এবং দেশের বাইরে এই দুইটি পোশাক এর চাহিদা আগামীতে ও বন্ধ হওয়ার কোন সুযোগ নেই। যুগের পর যুগ প্রয়োজন হবেই।

★★★ বাচ্ছা দের স্কুল এর ড্রেসকোট থেকে শুরু করে   “টাই “কর্পোরেট সেক্টর কোথায় লাগবেনা ?

 

★★★ জামদানী মুজিব কটি পাঞ্জাবী সাথে ফেশন্যাবল পোশাক যে কোন পোগ্রাম এর জন্য চাহিদা কমার চান্স ই নেই। যেহেতু বিভিন্ন কালার কম্বিনেশন এ পরার উপযোগি পোগ্রাম এর থিম অনুযায়ী।

 

★জামদানী কারিগর দের জামদানী উৎপাদন এর চাহিদা বাড়বে সেই সাথে যারা টেইলার  তারা আরও কাজ পাবে।

 

★যারা প্যাকেজিং করে তারা কাজ পাবে।

★কুরিয়ার সার্ভিস এর চাকরির সুযোগ তৈরি হবে আর ও জনবল দরকার হবে।

★ডেলিভারি বয় এর চাহিদা বাড়বে৷

 

★★★এতগুলো সমস্যা সমাধান হবে যদি আমার এই প্ল্যান প্রাচার এবং প্রসার করতে মিডিয়া এগিয়ে আসে।যতবেশি শেয়ার হবে তত মানুষ জানতে পারবে এবং চাহিদা বাড়বে বলে আমি মনে করি।

 

Moon das

Managing Director

Traditional store BD (Deshi ponno)

অনুগ্রহ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

এ সম্পর্কীত আরো সংবাদ