1. [email protected] : dalim :
  2. [email protected] : dalim1 :
বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ০৭:০৫ পূর্বাহ্ন

চট্টগ্রাম কারাগারে বন্দিকে বিষাক্ত ইনজেকশন পুশ করে নির্যাতনের অভিযোগ

  • প্রকাশিত হয়েছে : মঙ্গলবার, ২ মার্চ, ২০২১
  • ১৫৭ বার পঠিত হয়েছে

ল লাইফ রিপোর্ট: আর্থিক লেনদেন সংক্রান্ত একটি মামলায় চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে থাকা অবস্থায় রূপম কান্তি নাথ নামের এক বন্দিকে বৈদ্যুতিক শক এবং নেশা ও বিষাক্ত ইনজেকশন পুশ করে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে। কারা কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ তুলেছেন ভুক্তভোগী রূপমের স্ত্রী ঝর্ণা রানী দেবনাথ।

রূপম চট্টগ্রাম নগরীর পাহাড়তলী এলাকার বাসিন্দা। তার স্ত্রী ঝর্ণা বলেন, গত ১৫ ডিসেম্বর সুস্থ অবস্থায় জেল হাজতে নেওয়া হয় রূপমকে। এরপর জেল হাজতে মামলার বাদী রতন ভট্টাচার্য, চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারের জেল সুপার, জেলার ও জেলখানার কর্তব্যরত সহকারী সার্জন মিলে তার শরীরের বিভিন্নস্থানে বৈদ্যুতিক শক দিয়েছে এবং তাকে জখম করেছে।

এছাড়াও শরীরে দুটি বিষাক্ত ও নেশা জাতীয় ইনজেকশন পুশ করে রূপম কান্তিকে হত্যার চেষ্টা করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন ঝর্ণা। বর্তমানে রূপম চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ২৪ নং ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন আছেন।

এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে সিনিয়র জেল সুপার মো. শফিকুল ইসলাম খান বলেন, কারাগারে কাউকে নির্যাতন করা হয় না। শক দেওয়া ও বিষাক্ত ওষুধ দিয়ে হত্যাচেষ্টার কথা কোনোদিন শুনিনি। কারাগারে এ ধরনের কোনো ঘটনা ঘটেনি।

এ ঘটনায় সোমবার (১ মার্চ) বিকেলে চট্টগ্রাম মহানগর হাকিম হোসেন মোহাম্মদ রেজার আদালতে একটি মামলা দায়ের হয়েছে। মামলা করেছেন রূপম কান্তি নাথের স্ত্রী ঝর্ণা রানী দেবনাথ। নির্যাতন ও হেফাজতে মৃত্যু (নিবারণ) আইন ২০১৩ এর ১৩ (১) (২) এর (ক) (খ) (গ) ধারায় মামলাটি করা হয়। মামলায় জামালখান এলাকার রতন ভট্টাচার্য, চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারের জেল সুপার, জেলার ও জেলখানায় কর্তব্যরত সহকারী সার্জনকে আসামি করা হয়েছে। এছাড়া মামলায় আরও বেশ কয়েকজনকে অজ্ঞাত আসামি করা হয়েছে।

বাদীর আইনজীবী ভুলন লাল ভৌমিক বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, আদালত মামলাটি গ্রহণ করেছেন এবং আদেশের জন্য রেখেছেন। মঙ্গলবার (২ মার্চ) আদেশ হতে পারে।

মামলার এজাহারে বাদী ঝর্ণা রানী দেবনাথ উল্লেখ করেন, এজাহারভুক্ত আসামি রতন ভট্টাচার্যের সঙ্গে আর্থিক লেনদেন সংক্রান্ত একটি মামলায় (জিআর মামলা নং ৩৩২/১৮) গত ১৫ ডিসেম্বর কারাগারে যান রূপম কান্তি দেবনাথ। এরপর থেকে রূপমের পূর্বপরিচিত রতন ভট্টাচার্য নামের এক ব্যক্তি কারাগারের কর্মকর্তা ও কারা হাসপাতালের চিকিৎসকের মাধ্যমে তাকে নির্যাতন করে আসছেন। অভিযোগে বলা হয়, বন্দি রূপম কান্তি নাথকে অন্যায়ভাবে বিচারাধীন মামলায় নিজের ইচ্ছার বিরুদ্ধে স্বীকারোক্তি আদায় করার জন্য এবং স্থায়ীভাবে মানসিক ভারসাম্যহীন করার জন্য শারীরিক নির্যাতন ও বিষাক্ত নেশা জাতীয় দ্রব্য পুশ ও বৈদ্যুতিক শক দিয়ে নির্যাতন করেছেন।

এজাহারে আরও উল্লেখ করা হয়, নির্যাতনের খবর পেয়ে গত ২৫ ফেব্রুয়ারি বন্দি রূপম কান্তি নাথকে উন্নত চিকিৎসার জন্য আদালতে আবেদন করেন তার স্ত্রী ঝর্ণা রানী দেবনাথ। সেসময় আদালত আবেদন মঞ্জুর করেন। অন্যদিকে আসামিরা নিজেদের অপরাধ থেকে রক্ষা পেতে রূপম কান্তি নাথকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করান।

মামলার বিষয়ে সিনিয়র জেল সুপার মো. শফিকুল ইসলাম খান বলেন, যেহেতু বিষয়টি নিয়ে ভুক্তভোগীরা আদালতে গিয়েছেন, দেখা যাক কী হয়। তবে এ ধরনের নির্যাতনের কোনো অস্তিত্ব নেই কারাগারে। এ বিষয়ে জেল সুপার মো. রফিকুল ইসলামকে কয়েকবার ফোন দিলেও রিসিভ করেননি।

অনুগ্রহ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

এ সম্পর্কীত আরো সংবাদ