1. [email protected] : dalim :
  2. [email protected] : dalim1 :
বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ০৯:৩০ অপরাহ্ন

সেই মিনু ‘দুর্ঘটনায়’ নিহত : হাইকোর্টের নজরে আনবেন আইনজীবী

  • প্রকাশিত হয়েছে : রবিবার, ৪ জুলাই, ২০২১
  • ১৫৩ বার পঠিত হয়েছে

ল লাইফ রিপোর্টঃচট্টগ্রামের একটি হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত আসামির পরিবর্তে সাজা ভোগ করে সদ্য কারামুক্ত নিরপরাধ মিনুর ‘সড়ক দুর্ঘটনায়’ মারা যাওয়ার ঘটনাটি উচ্চ আদালতের নজরে আনবেন আইনজীবী।

রোববার (৪ জুলাই) মিনুকে কারামুক্ত করা সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মোহাম্মদ শিশির মনির ল লাইফ রিপোর্টকে বলেন, অবস্থাদৃষ্টে মনে হয় মিনুর মৃত্যুর সঠিক কারণ নির্ণয় করা জরুরি। এ মৃত্যুর প্রকৃত কারণ খুঁজে বের করার জন্য আমরা বিষয়টি আদালতের সামনে উপস্থাপন করব।

রোববার চট্টগ্রামের বায়েজিদ বোস্তামী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ কামরুজ্জামান মিনুর মারা যাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে গণমাধ্যমকে বলেন, গত ২৮ জুন রাতে বায়েজিদ সংযোগ সড়ক থেকে দুর্ঘটনায় নিহত এক নারীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। পরে তার পরিচয় শনাক্ত করা সম্ভব না হওয়ায় অজ্ঞাতনামা হিসেবে মরদেহ দাফন করে আঞ্জুমান মফিদুল ইসলাম। শনিবার (৩ জুলাই) বায়েজিদ থানার একটি টিম সীতাকুণ্ড এলাকার লোকজনকে ছবি দেখিয়ে মিনুর পরিচয় শনাক্ত করে। তিনি সেই আলোচিত মিনু আক্তার।

এর আগে গত ১৬ জুন হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি কুলসুম আক্তার কুলসুমীর পরিবর্তে প্রায় তিন বছর কারাভোগ শেষে উচ্চ আদালতের নির্দেশে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে মুক্ত হন মিনু। গত ৬ জুন চট্টগ্রামের একটি হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত আসামির পরিবর্তে সাজা ভোগ করা নিরপরাধ মিনুকে মুক্তির নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে প্রকৃত আসামি কুলসুম আক্তার কুলসুমীকে গ্রেফতারের নির্দেশ দেন আদালত। বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন সেলিম ও বিচারপতি মহিউদ্দিন শামীমের হাইকোর্ট বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

আদালতে মিনুর পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট মো. শিশির মনির। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন।

হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি কুলসুম আক্তারের হয়ে সাজা ভোগ করা মিনুর বিষয়টি আদালতের নজরে আনেন আইনজীবী শিশির মনির।

জানা গেছে, গত ২৪ মার্চ চট্টগ্রামের কেন্দ্রীয় কারাগারে একটি হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি কুলসুম আক্তার কুলসুমী নামে এক নারীর পরিবর্তে সাজা ভোগ করা মিনুর নথি হাইকোর্টে পাঠানো হয়। এর আগের দিন ২৩ মার্চ হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি কুলসুম আক্তার কুলসুমী নামে এক নারীর বদলে সাজা ভোগ করার অভিযোগ আনা মিনুর উপ-নথি হাইকোর্টে পাঠানোর আদেশ দেন চট্টগ্রামের অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ শরীফুল আলম ভুঁঞা।

মহানগর দায়রা জজ আদালতের অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) মো. নোমান চৌধুরী বলেন, আদালতে সংরক্ষিত ছবি সম্বলিত নথিপত্র দেখে কুলসুম আক্তার কুলসুমী আর মিনু এক নয় বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। যেহেতু ইতোমধ্যে এ মামলার রায়ের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে আপিল করা হয়েছে, তাই মামলার উপ-নথি দ্রুত হাইকোর্টে পাঠানো হয়।

উল্লেখ্য, হত্যা মামলায় আদালত যাবজ্জীবন সাজাসহ ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও এক বছরের কারাদণ্ড দেন কুলসুম আক্তার কুলসুমীকে। কিন্তু আদালতে আত্মসমর্পণ করে সাজা ভোগ করেন মিনু নামের ওই নারী। নামে ও ছবির মিল না থাকার পরও কুলসুম আক্তার কুলসুমীর বদলে মিনু চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে ছিলেন দুই বছর ৯ মাস ১০ দিন।

  • এম/এ/হ

অনুগ্রহ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

এ সম্পর্কীত আরো সংবাদ